বটিয়াঘাটায় অসহায় সংখ্যালঘুর জমি জোরপূর্বক দখল, ভূমিদস্যু নজরুল মেম্বারের বিরুদ্ধে এসপি অফিসে অভিযোগ!

খুলনা বিভাগ

বটিয়াঘাটায় এক অসহায় সংখ্যালঘু কর্তৃক নামকরা ভূমিদস্যু নজরুল মেম্বার এর বিরুদ্ধে এস পি অফিসে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। জানা যায়, বটিয়াঘাটায় এক অসহায় সংখ্যালঘু পরিবারকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে তাদের তাদের বৈধ সম্পত্তি অবৈধভাবে জোরপূর্বক দখলে রেখে ভোগ করে চলেছে এই ভূমিদস্যু নজরুল মেম্বার। অভিযোগে জানা যায়, অসহায় সংখ্যালঘু দীনবন্ধু মন্ডল , পিতা- শ্রী গুরুসি মন্ডল , সাং- হেতালবুনিয়া , বটিয়াঘাটা , খুলনা এই মর্মে অভিযোগ করেন, নিঃ তপশীল বর্ণিত ০.৫৩ একর জমি আমি কোবলমূলে প্রাপ্ত হইয়া ভােগদখলে আছি ।

ভােগদখলে থাকাবস্থায় উক্ত জমি নজরুল ইসলাম খান ( মেম্বার , ওয়ার্ড নং -৯ , ২ নং বটিয়াঘাটা সদর ইউনিয়ন ) গং আমার নিকট হইতে বিগত ২০১৩ সালে বর্গা গ্রহন করে । কিন্তু ২০১৫ সাল হতে উক্ত জমির বর্গার টাকা আমাকে প্রদান করে না। আমি টাকা চাহিতে গেলে আজ দিব কাল দিব বলে টালবাহানা করতে থাকে । একপর্যায়ে আমি আমার উক্ত জমি ছাড়িয়া দিতে বলিলে উক্ত নজরুল ইসলাম খান সহ তাহার লােকজন আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ সহ জীবননাশের হুমকি প্রদান করে এবং অদ্যবধি আমার উক্ত জমি অবৈধভাবে ভােগদখল করিয়া রাখিয়াছে । উল্লেখ্য যে , উক্ত জমি আমি সার্ভেয়ার দ্বারা পরিমাপ করাইতে গেলে উক্ত নজরুল ইসলাম খান মেম্বার তাহার মিলের মহিলাদের নিয়ে এসে হুমকী দেয় এবং নজরুল ইসলাম খান মেম্বার এর ছেলে কতিপয় সন্ত্রাসী প্রকৃতির লােক নিয়ে এসে আমাদের উক্ত জমি পরিমাপ করিতে বাধা সৃষ্টি করে এবং সকলে মিলে আমাদের জোরপূর্বক জমি থেকে বের করে দেয় । জমির তপশীলঃ জেলা- খুলনা , থানা ও সাব রেজিষ্ট্রী অফিস বটিয়াঘাটা অধীন ২ নং বটিয়াঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের অর্ন্তগত জে , এল নং -১২ , মৌজা- হাটবাড়ী ( বড় ) মধ্যে সি , এস ১১ নং খতিয়ানের স্থলে এস , এ ৩১ নং তৎপর পৃথক ৩১/৩ নং খতিয়ানে লিখিত সি , এস ও এসএ , ১২৮৭ , ১২৮৮ , ১২৯৪ , ১২৯৫ , ১২৯৬ ১২৬১ , ১২৬১/১৩০৫ , ১২৬১ / ১৩৩০ নং দাগের মধ্যে ০.৫৩ একর জমি । দেশের ভূমদস্যুদের মূলোৎপাটনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন কঠোর অবস্থানে সেখানে নজরুল মেম্বার একজন জন প্রতিনিধি হয়ে কিভাবে এই অসহায় সংখ্যালঘু পরিবারের উপর হুমকি দিয়ে অবৈধভাবে সম্পত্তি ভোগ দখল করে আসছে। জনমনে এমন প্রশ্ন উঠেছে এবং অনতিবিলম্বে নজরুল মেম্বার কে আইনের আওতায় আনার আহবানও জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ। অন্যদিকে অসহায় সংখ্যালঘু পরিবারটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন এবং জানিয়েছেন আমি যেন আমার বৈধ সম্পত্তি সঠিকভাবে ফিরে পাই , কোনো প্রকার প্রাণনাশের হুমকির সম্মুখীন যেন আমাকে হতে না হয় এবং শান্তিতে আমার পরিবার নিয়ে আমি বসবাস করতে পারি।

Tagged

Leave a Reply