নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির প্রভাব ছোট হয়ে গেছে পরোটা কমেছে চায়ে চিনি

বাংলাদেশ

আকতার ফারুক শাহিন , বরিশাল: হঠাৎই ছোট হয়ে গেল হোটেল – রেস্তোরাঁর পরোটার আকার । সড়কের মোড় আর অলিগলির টং দোকানগুলোয় মিলছে না চার সঙ্গে প্রয়োজনমতো চিনি । বিলাসী হোটেল – রেস্তোরাঁগুলো এরইমধ্যে বাড়িয়ে দিয়েছে খাদ্যের দাম ।

মূল্য বৃদ্ধি করলে কাস্টমার হারানোর আশঙ্কায় থাকা ছোট হোটেলগুলো নিয়েছে ভিন্ন পদ্ধতি । গ্রাহককে দেওয়া খাবারের পরিমাণ কমিয়ে চলছে টিকে থাকার চেষ্টা । ভোজ্যতেলসহ প্রায় সব ধরনের নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে এভাবেই এখন যে যার মতো অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই করছে ।

শুধু হোটেল রেস্তোরা নয় , মধ্য ও নিম্নবিত্তের ঘরেও শুরু হয়েছে কৃচ্ছতা সাধন । পরিমাণে কম খেয়ে কিংবা তেল মসলার কম ব্যবহারে আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের সমতা রক্ষার চেষ্টা করছেন সবাই । কম আয়ের মানুষেরা সাধারণত দুটি পরোটা আর ১০ টাকার সবজি দিয়েই সেরে নেন সকালের নাস্তা ।

তেল – ডালের মূল্যবৃদ্ধির জেরে সেই পরোটা, সবজিও হয়ে উঠছে দুষ্প্রাপ্য। ছোট হোটেলগুলোতে ৫ টাকা করে বিক্রি হয় প্রতি পরোটা । এখন পর্যন্ত এই দাম অপরিবর্তিত থাকলেও ছোট হয়ে গেছে পরোটার আকার ।

বুধবার সকালে নগরীর বটতলা বাজারসংলগ্ন একটি রেস্তোরাঁয় গিয়ে চোখে পড়ে এই দৃশ্য । যে আকারের পরোটা এখন তৈরি হচ্ছে তাতে বর্তমানের দুটি মেলালেও হবে না আগের একটির সমান। পরোটার সাইজ ছোট হওয়াই শুধু নয় , কমেছে সবজির পরিমাণও । দিন দুই আগেও ১০ টাকায় যে সবজি মিলত এখন কমে হয়েছে অর্ধেক ।

নাস্তা করতে আসা এনজিওকর্মী পলাশ তালুকদার অনেকটা রসিকতার সুরে বলেন , যে সাইজের পরোটা খাচ্ছি তাতে এটুকু সবজির বেশি লাগেও না । হোটেলের মালিক রায়হান মুন্সি বলেন, এছাড়া তো কোনো উপায় নেই ।

জিনিসপত্রের দাম যেভাবে বেড়েছে তাতে পরোটা ছোট আর সবজি কম দিয়েও তো টিকতে পারছি না । এমনকি ক্রেতার চাহিদামতো চিনি পর্যন্ত দিতে পারছি না চায়ে ।

খুলনা টিভি

Tagged

Leave a Reply